Bengali Cultural Society of Kuwait

Connect us on

Download the "BCS EVENT APP" from

BCS History

Down The Memory Lane ..

Prologue

Time passes so quickly, and it is exasperating to recollect the past happenings!

Yet it is very difficult to forget certain incidents.

Driven by the impulse of exploring the areas of unknowns and satiating professional interests, people migrate often from their homeland and by turn of events assemble sometimes in a place where, amongst other things, they need to quench their cultural thirst. We, the Bengali speaking Indians have happened to gather in Kuwait under similar turn of events. Amidst the hustle and bustle of our daily lives, we from time to time, feel nostalgic about our cultural heritage that we left behind. Increased desire to satiate that yearning at a distant land resulted in the formation of the Bengali Cultural Society through noble efforts of some our enthusiastic dedicated Pioneers.

The objectives of the Bengali Cultural Society have always been to promote the Bengali Culture in the spheres of drama, music, dance, recitation, and other forms of art which help the Bengali community to retain their rich heritage and contact the mainstream of culture.

So many people came, did put up brilliant performances & shows in our Bengali Cultural Society (BCS), Kuwait and were gone, yet their works and names are still lingering in our minds and hearts. And with time, we reached new heights and dignity in our Indian Cultural Fraternity in Kuwait , a far away country in Middle East , yet we are so close to our cultural identity.

The first Bengali landed in Kuwait way back in September 09, 1959 and that was Gupta da (late Jitendra Kumar Gupta) who joined then Ministry of Electricity & Water. A group of Bengalis arrived in 1963 from Calcutta Telephones on a deputation basis to help building the communication system of the State of Kuwait. These Bengalis used to stay mostly at Salmiya only, and they were (late) Bibhutosh Ray, M N Karkun, Tapan Choudhuri (MOC), Manohar Datta, late N.C. Mukherjee, H.P. Ghosal, late S.P. Roy, late B.C. Datta, Dwijen Chatterjee. Ramesh Biswas was, in fact, the first Bengali in the Kuwaiti banking sector, working in Gulf Bank and Susantamoy Majumdar was then working in the only power station in Kuwait , Shuwaikh Power Station, Ministry of Electricity & Water.

Another lot arrived in early seventies, and they were Nabasish Kabiraj, late Apurba Sengupta, late Swapan Dasgupta, who were actively involved with the cultural activities then, prior to formation of Bengali Cultural Society.

Arrived in mid & late seventies were Salil Banerjee, Amitava Mukherjee, Subhash Bhattacharya, Subir Roy, Himansu Bhaumik, Tapan Ghose, Panna Lal Santra, K.D. Banerjee, Dilip Sen, Dilip Chatterjee, Asit Kundu, Kalyan Majumdar, Subroto Pakrasi , Parimal De, Sudhir Bhattacharya, ShyamaL Roy Choudhuri.
Amongst those arrived in early eighties were Siddhartha Deb, Nripen Achariya, Suranjan Chanda, Satya Chakraborti, Indrajit Bhowmick, Debasish Choudhuri, Siddhartha Bhattacharya, Kumaresh Choudhuri, Biren Mallick.

All these members have immense amount of contribution towards the growth of this society. Before formally forming the Bengali Cultural Society, Kuwait in March, 1978, Kuwait ‘s first few Bengali residents used to meet together and enjoy a few hours of Bengali music, songs only. In those days, Kuwait ‘s Bengali population barely exceeded a dozen families and so the venues of such entertainment were someone’s drawing room and the entertainments were limited to musical variety only, and that too used to be provided mainly by Susantamoy majumdar and his wife, Dipika Majumdar, and subsequently Keka Mukherjee, Krishna Majumdar, and so on. Classical dance recitals used to be presented by Nandita Dasgupta, Archana Mukherjee & Sangeeta Majumdar. Nandita Dasgupta also used to present Indian Classical Dance Recitals for other Indian Cultural Organizations in Kuwait .

Sumita Deb was the pioneer to present Tagore’s dance drama in Kuwait . We were also not very far behind with recitation as the same used to be presented by Subhash Bhattacharya, Swapan Dasgupta, Mahua Sengupta. Then the only mimicry artist was Salil Banerjee, who learned the art from renowned Jogesh Datta.
In those days, pujas like Lakshmi & Saraswati Pujas used to be part of our social calender. Old timers would tell us that the Bijoya Dasami used to be celebrated with a cauldron of rasgulla in a corner of Salmiya Park .

Gradually, more and more Bengalis started coming to Kuwait from early seventies and the number of amateur artists increased. So did their cultural repertoire. The stage also shifted from drawing rooms to public halls and auditoriums. Dramas and dance dramas were also staged, and so were variety programs with far more artists with far more variety than were earlier possible. As such the first Bengali drama was staged as early as in 1972 with the arrival of such drama lovers like Nabasish Kabiraj, Salil Banerjee, Swapan Dasgupta, and later on, joined the group were Himansu Bhaumik, Panna Lal Santra, Kamal Sen, etc. along with the veteran Susantamoy Majumdar. Infact, the main attraction of BCS cultural calendar those days were the annual drama and it evolved with various themes like social, historical, comedy, etc. and attained the highest perfection and professionalism, bagged the best drama award in Kuwait.

As the years passed by, a few enthusiastic individuals newly arrived in mid seventies, (then) young Bengalis like (late) Swapan & Nandita Dasgupta, Kalyan & Krishna Majumdar, Himansu Bhaumik, Tapan Ghosh, Salil Banerjee, Asit Kundu, Subroto Pakrasi, mostly staying at Salmiya, used to sit together and do chatting, , “Adda”, mostly at Swapan Dasgupta’s house. It was the month of January, winter of 1978, during one of those addas, these young Bengalis were planning to celebrate Saraswati Puja by themselves, even though Saraswati Puja used to be celebrated at the house of one of the veterans, late Susantamoy Majumdar. Before formation of Bengali Cultural Society, all the bengalis residing in Kuwait then used to gather at the house of late Susantamoy Majumdar, to enjoy the puja and stage dramas too, but without any banner.

Initial contributions made by the above young people for the Saraswati Puja, and subsequently other bengalis like Bibhutosh Ray, MN Karkun, Tapan Choudhuri, Guptada, who were then residing at Salmiya also joined those young bengalees and together celebrated the Saraswati Puja at the house of late Swapan Dasgupta. As these people celebrated Saraswati Puja separately, late Susantamoy Majumdar was a bit upset and stayed away, did not join initially the first meeting which was held at late Swapan Dasgupta’s house after the Saraswati Puja. In fact, he joined the society later. And so was Mr. Manohar Datta.
Then with the balance fund from Saraswati Puja, these young people were planning to start a cultural organization and eventually the first meeting took place at the house of late Swapan Dasgupta, where only twelve people like Salil Banerjee, Himansu Bhaumik, Ramesh Biswas, Tapan Choudhuri (MOC), (late) Swapan Dasgupta, Tapan Ghose, (late) Jiten Gupta, M N Karkun, Asit Kundu, Kalyan Majumdar, Subroto Pakrasi & (late) Bibhutosh Ray were present then. During that meeting, the cultural society was born. And the name of the society was adopted as Bengali Cultural Society of Kuwait. The people who were present in that meeting were only termed as the founder members.

Other old timers like M/S Manohar Datta, late N.C. Mukherjee, H.P. Ghosal, late S.P. Roy, late B.C. Datta, Dwijen Chatterjee, late Apurba Sengupta, Nabasish Kabiraj, Panna Lal Santra, K.D. Banerjee, Dilip Sen, Amitava Mukherjee, Subhash Bhattacharya and other Bengalis were not present in that first meeting. Subsequently, almost all the bengalis residing then in Kuwait joined the BCS and eventually the society has gradually grown into a big cultural society.
This is how the Bengali Cultural Society of Kuwait was born in March, 1978.
The constitution of Bengali Cultural Society of Kuwait was first drafted & prepared by Himansu Bhaumik. And Gupta da (late Jitendra Kumar Gupta) was the first President of Bengali Cultural Society of Kuwait.

Conclusion

Today,the BCS has grown into a large & one of the most respected and thriving cultural organizations in Kuwait . It’s like a big banyan tree – once planted and slowly with time grown into a large tree and eventually people enjoy its huge cultural shade and activities. The Society has been in the forefront in its contribution towards enriching the social, educational and cultural values of the Indian community in Kuwait . The Society also participates in various cultural and benevolent programs organized by the Embassy of India, and it is also known for its continuous supports to various charitable causes like donating generously to such as Ramkrishna Mission, Bharat Sebashram Sangha, Prime Minister’s Relief Fund for Kargil War, Gujrat Relief, and recently, devastating Tsunami disaster and repatriation of stranded Indian workers back to India.

And we feel proud that we are able to keep up our Bengali Cultural values and traditions even at a far away place, Kuwait , a home away home.Note: This article was written in consultation with other existing founder members of BCS, like Himansu Bhaumik, Nandita Dasgupta (w/o Late Swapan Dasgupta), Kalyan & Krishna Majumdar, Tapan Ghosh & Salil Banerjee, by Asit K. Kundu, who happened to be a founder member of Bengali Cultural Society , Kuwait .

—————————————————————————————————————————————————————————-

কুয়েতের বঙ্গীয় সাংস্কৃতিক সমিতির সংক্ষিপ্ত ইতিহাস ও আনুসঙ্গিক ।

স্মৃতির সরনী ধরে ——————-

প্রথম অধ্যায় :-

**গোড়ার কথা**

সময়ের স্রোতে প্রতি অনুপলে বর্তমানকে ছুঁয়ে অতীতের গর্ভে চলে যাচ্ছে ভবিষ্যৎ । অতীত মানে কিছু স্মৃতিকথা, অতীত মানে ইতিহাস । অতীতে ঘটে যাওয়া স্মৃতিমেদুর বহু ঘটনার রেশ যেন আজও রয়ে যায়, যায় না ভোলা ।
কুয়েত এক মরুশহর সমন্বিত একটি ছোট দেশ যা প্রধানত খনিজ তেলের অগাধ সম্ভারের ওপর ভিত্তি করে খুব কম সময়ের মধ্যেই আধুনিক হয়ে উঠেছে । বিগত শতাব্দীর মাঝামাঝি সময় থেকেই নিজ নিজ পেশার উপর ভিত্তি করে ভারত ও অন্যান্য দেশের নাগরিকেরা কুয়েতে এসে সাময়িক বা দীর্ঘ সময়ের পরিকল্পনা নিয়ে বসবাস শুরু করে । ইতিমধ্যেই কুয়েতে ঠাঁই নিয়েছেন কয়েক লক্ষ ভারতীয় । ভারতের বিভিন্ন প্রদেশ এবং মূলতঃ পশ্চিমবঙ্গ থেকে কুয়েতে ভারতীয় বাঙালীরা এসেছেন কেউ বা ক্ষণ, কেউ বা দীর্ঘ সময়ের পরিসরে বসবাস করার জন্য । ভারতের বিভিন্ন প্রদেশের মানুষ তাদের প্রাদেশিক ভাষা ও সংস্কৃতির উপর ভিত্তি করে গড়ে তুলেছেন বিভিন্ন সংগঠন । বিভিন্ন দেশের ও প্রদেশের নিজস্ব সংস্কৃতি ও শিল্পের অনুশীলন করার সুযোগ করে দেবার জন্য মহামান্য আমীর এবং কুয়েত সরকারের উপর আমরা কৃতজ্ঞ । বাঙালী হিসাবে আমরাও গড়ে তুলেছি বাংলার কৃষ্টি, সংস্কৃতি ও ভাষায় সমৃদ্ধ—বঙ্গীয় সাংস্কৃতিক সমিতি । বিগত ১৯৭৮ সনে যে চারাগাছটি সযত্নে প্রোথিত হয়েছিল,-দীর্ঘ সময় ধরে লালিত হয় আজ সেই বৃক্ষ স্বমহিমায় বিকশিত । প্রাণের ও আত্মীক তাগিদে আমরা অভিন্ন । আজ গর্বের সাথে বলা যায় যে কুয়েতে অবস্থানকারী সমস্ত প্রদেশের মানুষের কাছেই আমরা সমাদৃত ।

যদিও ১৯৭৮ সালের মার্চ মাসে আনুষ্ঠানিক ভাবে বঙ্গীয় সাংস্কৃতিক সমিতি প্রতিষ্ঠিত হয়, তবুও তার বহু আগে থেকেই বহু মানুষের আন্তরিক অধ্যবসায় ও নিরলস প্রচেষ্টার মাধ্যমে ঘটে চলেছিল এর ভিত তৈরির কাজ । ছিল ঘর থেকে বহুদূরে এসেও নিজেদের ঐতিহ্যকে ধরে রাখার তাগিদ । সে কথা ভোলার নয় ।
আজ থেকে প্রায় ৫৫ বছর আগে যে প্রথম ভারতীয় বাঙালী ভদ্রলোকটি কুয়েতের মাটিতে পা রাখেন,-তিনিই আমাদের প্রথম পূর্বসূরী— স্বর্গীয় জীতেন্দ্র কুমার গুপ্ত । তিনি কুয়েত সরকারের জল ও বিদ্যুৎ বিভাগে পদাধিকার লাভ করেন । দিনটি ছিল-১৯৫৯ সালের ৯ই সেপ্টেম্বর । পরবর্তীকালে ১৯৬৩ সালে কলিকাতা টেলিফোনস থেকে কুয়েতে ডেপুটেশানে আসেন একঝাঁক প্রতিভাবান বাঙালী । তাঁদের মধ্যে ছিলেন স্বর্গীয় বিভূতোষ রায়, শ্রী এম এন কারকুন, শ্রী তপন চৌধুরী(এম ও সি), শ্রী মনোহর দত্ত, স্বর্গীয় এন সি মুখার্জী, শ্রী এইচ পি ঘোষাল, স্বর্গীয় এস পি রায়, স্বর্গীয় বি সি দত্ত এবং শ্রী রমেশ বিশ্বাস প্রমুখেরা । তাঁরা মূলতঃ সালমিয়া অঞ্চলেই বসবাস করতেন । শ্রী রমেশ বিশ্বাসই প্রথম বাঙালী হিসেবে কুয়েতের ব্যাংকিং ব্যবস্থায় নিযুক্ত হন । শ্রী সুশান্তময় মজুমদার কুয়েতের সুয়েখে অবস্থিত প্রথম বিদ্যুৎ প্রকল্পে নিযুক্ত হন ।

ধীরে ধীরে আমরা সংখ্যায় বেড়ে উঠতে থাকি । সত্তর দশকের গোড়ার দিকে অনেকেই কুয়েতে আসেন । এদের মধ্যে ছিলেন সাহিত্যিক, শিল্পী,নাট্যপ্রিয় শ্রী নবাশিস কবিরাজ, স্বর্গীয় অপূর্ব সেনগুপ্ত, স্বর্গীয় স্বপন দাশগুপ্ত, শ্রী তপন মুখার্জী এবং শ্রী তরুন মুখার্জী । এদের মধ্যে অনেকেই সাংস্কৃতিক চর্চায় সক্রিয় ছিলেন । সত্তর দশকের মাঝামাঝি ও শেষদিকে আসেন শ্রী সলিল ব্যানার্জী, শ্রী হিমাংশু ভৌমিক, স্বর্গীয় তপন ঘোষ, শ্রী পান্নালাল সাঁতরা, শ্রী সুবীর রায়, শ্রী অমিতাভ মুখার্জী, শ্রী সুভাষ ভট্টাচার্য, শ্রী কে ডি ব্যানার্জী, শ্রী দিলীপ সেন, শ্রী দিলীপ চ্যাটার্জী, শ্রী অসিত কুন্ডু, শ্রী কল্যাণ মজুমদার, শ্রী সুব্রত পাকড়াশি, শ্রী পরিমল দে, শ্রী সুবীর ভট্টাচার্য, শ্রী শ্যামল রায়চৌধুরী ও শ্রী রঞ্জিত চক্রবর্তী ।পরবর্তীকালে, বঙ্গীয় সাংস্কৃতিক সমিতি গঠনের পরে আশির দশকের গোড়ার দিকে আরও বেশকিছু মানুষ এসে সমিতিকে আরও সমৃদ্ধ করেন । সেই সময়ে এসেছিলেন,- শ্রী সিদ্ধার্থ দেব, শ্রী নৃপেন আচার্য, শ্রী সুরঞ্জন চন্দ, শ্রী সত্য চক্রবর্তী, শ্রী ইন্দ্রজিৎ ভৌমিক, শ্রী দেবাশিস চৌধুরী, শ্রী সিদ্ধার্থ ভট্টাচার্য, শ্রী কুমারেশ চৌধুরী এবং শ্রী বীরেন মল্লিক ।

এতাবৎ যাদের নাম উল্লিখিত হল, তাঁদের অনেকেই হয়ত অবসর গ্রহণ করে ফিরে গেছেন , আবার অনেকেই চিরদিনের মতো আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন । আজ যে অবয়বে আমরা বঙ্গীয় সাংস্কৃতিক সমিতিকে দেখছি, তাকে প্রতিষ্ঠা করার পিছনে এঁদের সকলেরই অবদান অনস্বীকার্য ।

১৯৭৮ সালের মার্চ মাসে আনুষ্ঠানিকভাবে সমিতির প্রতিষ্ঠালাভের আগে বাঙালীরা সবাই সমবেত হয়ে বাংলার সঙ্গীত, নৃত্য এবং অন্যান্য শিল্পকলার চর্চা নিয়মিতভাবে চালিয়ে যেতেন । তখন কুয়েত প্রবাসী ভারতীয় বাঙালীর সংখ্যা ছিল অত্যন্ত সীমিত । তাই সপ্তাহান্তে কারোর না কারোর বাড়ির বসবার ঘরে আসর বসতো । তখন সঙ্গীতই ছিল মূল চর্চার বিষয় । শ্রীসুশান্তময় মজুমদার ও তাঁর স্ত্রী শ্রীমতী দীপিকা মজুমদারই ছিলেন এর পুরোভাগে । তারপরে শ্রীমতী কেকা মুখার্জী, শ্রীমতী কৃষ্ণা মজুমদার এবং আরো অনেকে এই আসরে নিয়মিত যোগদান করে আসরকে আরও সমৃদ্ধ করে তোলেন ।
কুয়েতে বাঙালীদের মধ্যে ধ্রুপদী নৃত্যের অনুশীলন শুরু হয় শ্রীমতী নন্দিতা দাশগুপ্ত, শ্রীমতী অর্চনা মুখার্জী এবং শ্রীমতী সজ্ঙ্গীতা মজুমদারের হাত ধরে । তখন কুয়েতের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে ধ্রুপদী নৃত্য পরিবেশনের জন্য বাঙালীদের পক্ষ থেকে অংশগহন করতেন শ্রীমতী নন্দিতা দাশগুপ্ত ।
রবীন্দ্র নৃত্যনাট্য প্রথম মঞ্চস্থ হয়েছিল শ্রীমতী সুমিতা দেবের পরিচালনায় । কবিতা আবৃত্তিতেও আমরা কখনই পিছিয়ে থাকিনি । কবিতা আবৃত্তিতে অত্যন্ত জনপ্রিয়তা লাভ করেন,-শ্রী সুভাষ ভট্টাচার্য, শ্রী স্বপন দাশগুপ্ত এবং শ্রীমতি মহুয়া সেনগুপ্ত । সেই সময় আমাদের মধ্যে একমাত্র সুদক্ষ মূকাভিনেতা ছিলেন- শ্রী সলিল ব্যানার্জী । তিনি শ্রদ্ধেয় যোগেশ দত্তের কাছ থেকে মূকাভিনয়ের তালিম নিয়েছিলেন ।

ফিরে যাই সত্তর দশকের শেষদিকে । তখন ক্যালেন্ডারের সূচী অনুযায়ী লক্ষ্মী ও সরস্বতী পুজো আয়োজিত হতো । আবার সালমিয়া গার্ডেনের এককোনে সমবেত হয়ে রসগোল্লা বিতরণের মাধ্যমে বিজয়া দশমী পালন করা হতো । প্রতিকূল পরিবেশের মধ্যে নিজেদের সংস্কৃতিকে বাঁচিয়ে রাখার কি অদম্য তাগিদ ছিল তাঁদের মনে- সেকথা স্মরণে এলে আজও বিস্মিত ও রোমাঞ্চিত হতে হয় । ক্রমশঃ আরও অনেক বাঙালী পরিবার কুয়েতে এসে সমন্বিত হতে থাকেন সংস্কৃতির এই প্রবাহে । সত্তর দশকের শুরুর থেকেই বেশকিছু প্রতিভাধর শিল্পী পেয়ে যায় বাঙালীমহল । তাই বিস্তৃত হতে লাগল আমাদের সাংস্কৃতিক পরিধি । ড্রয়িং রুমের গন্ডী পেরিয়ে মঞ্চস্থ হতে থাকল-বিভিন্ন অনুষ্ঠান – বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহে । নাটক ও নৃত্য-নাট্যও মঞ্চস্থ হতে থাকল নিয়মিতভাবে ।

প্রথম বাংলা নাটক মঞ্চস্থ য় ১৯৭২ সালে, যখন শ্রী নবাশিস কবিরাজ, শ্রী সলিল ব্যানার্জী এবং শ্রী স্বপন দাশগুপ্তের মতো নাট্যানুরাগীরা উদ্যোগী হয়ে ওঠেন । পরে এই উৎসাহে উদ্দীপ্ত হয়ে নাটকের দলে এসেছেন শ্রী হিমাংশু ভৌমিক, শ্রী পান্নালাল সাঁতরা এবং শ্রী কমল সেন প্রমুখেরা । এঁদের সাথে ছিলেন প্রবীন নাট্যানুরাগী শ্রী সুশান্তময় মজুমদার । বস্তুতঃ, তখনকার দিনে বাঙালীদের মধ্যে সাংস্কৃতিক আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে উঠেছিল নাটক । প্রতিবছর সামাজিক, ঐতিহাসিক অথবা হাস্যরসাত্মক পটভূমিকায় মঞ্চস্থ হতো নাটকগুলি । প্রতিটি নাটকই ছিল অত্যন্ত সুচারু, চিত্তাকর্ষক ও ব্যঞ্জনাময় । সেই জন্যই সে সময়ে কুয়েতে মঞ্চস্থ শ্রেষ্ঠ নাটকের পুরস্কারের অধিকারী হই আমরাই ।
আগেই উল্লিখিত হয়েছে,- সত্তর দশকের মাঝামাঝি বেশ কিছু শিল্প ও সংস্কৃতিমনষ্ক বাঙালী কুয়েতে আসেন । তারা প্রধানতঃ সালমিয়া অঞ্চলেই বসবাস করতেন এবং নিয়মিত তাদের আড্ডাও বসতো এই অঞ্চলেই । তখন শ্রীসুশান্তময় মজুমদারের বাড়িতে সরস্বতী পুজো হতো । সবাই সম্মিলিত হতেন এই পুজোয় । এর পরে শ্রী স্বপন দাশগুপ্তের বাড়িতেও সরস্বতী পূজো অনুষ্ঠিত হতে থাকে । সেখানে পুজোর আসরে আসতেন আরও অনেকেই । পরে সমন্বয়ের মাধ্যমে সবাই শ্রী স্বপন দাশগুপ্তের বাড়িতে পুজো উদযাপন করতেন । বাঙালীদের সংখ্যা ও সংগঠন ক্রমশঃ বিকশিত হচ্ছিল । কিন্তু তখন অবধি সংগঠনের আনুষ্ঠানিক কোন নাম ছিল না । তখন থেকেই পূর্ণাঙ্গ একটি সংগঠনের চিন্তাধারা জোরালো হয় এবং তার রূপরেখাও কল্পিত হয় । সরস্বতী পুজোয় সংগৃহীত অর্থের অতিরিক্ত অংশ সঞ্চিত হয় সংগঠনের ফান্ড হিসেবে । অবশেষে এই উদ্দেশ্যে একটি মিটিং ডাকা হয় শ্রী স্বপন দাশগুপ্তের বাড়িতে । এই সভার মাধ্যমেই আমাদের সংগঠন প্রথম প্রতিষ্ঠা লাভ করে । নামকরণ করা হয়,-“বঙ্গীয় সাংস্কৃতিক সমিতি- কুয়েত”। ঐ মিটিং এ যে ১২ জন সদস্য উপস্থিত ছিলেন তারাই ছিলেন সমিতির প্রতিষ্ঠাতা সদস্য । এরা হলেন,-স্বর্গীয় জীতেন গুপ্ত, স্বর্গীয় স্বপন দাশগুপ্ত, শ্রী সলিল ব্যানার্জী, শ্রী হিমাংশু ভৌমিক, শ্রী রমেশ বিশ্বাস, শ্রী তপন চৌধুরী(এম ও সি), স্বর্গীয় তপন ঘোষ, শ্রী এম এন কারকুন, শ্রী অসিত কুন্ডু, শ্রী কল্যাণ মজুমদার, শ্রী সুব্রত পাকড়াশি এবং স্বর্গীয় বিভুতোষ রায় ।
এভাবেই স্থাপিত হয় কুয়েতের বঙ্গীয় সাংস্কৃতিক সমিতি । সমিতি প্রতিষ্ঠার সাথে সাথেই অনুভূত হয় সমিতির সংবিধানের প্রয়োজনীয়তা । শ্রী হিমাংশু ভৌমিক সবার সাথে আলোচনা করে অত্যন্ত সুনিপুণভাবে রচনা করেন সমিতির সংবিধান যা আজ পর্যন্ত প্রায় অপরিবর্তিত আছে । সমিতির প্রথম কার্যকরী সমিতির সভাপতি হিসাবে কার্যভার গ্রহন করেন স্বর্গীয় জীতেন্দ্র কুমার গুপ্ত ।

দ্বিতীয় অধ্যায়:-

গোড়ার কথায় বার বার ঘুরে ফিরে এসেছে বেশ কিছু নাম, যাদের অবদান অনস্বীকার্য । তারপর কয়েক দশক পেরিয়ে এসেছি আমরা । এরমধ্যে কুয়েত আক্রান্ত হয়েছে । সেই যুদ্ধের প্রত্যক্ষদর্শী ছিলেন অনেকেই । আমাদের সমিতিও নানা ঘাত প্রতিঘাতের মধ্যে দিয়ে দৃঢ়ভাবে এগিয়ে চলেছে । প্রতি বছর নতুন কার্যকরী সমিতি কার্যভার গ্রহন করেছে নতুন সভাপতির পরিচালনায় । বিবর্তন এসেছে আমাদের মননে । নব নব পরিকলপনা বাস্তবায়িত হয়ে পরিবর্তিত ও পরিবর্দ্ধিত হয়েছে আমাদের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানগুলির রূপরেখা । নতুন প্রজন্ম এসেছে । ভবিষ্যৎ অপেক্ষমান পরবর্তী প্রজন্মের জন্য । এরই মধ্যে বিকশিত হয়েছে নাটকে, নাট্য নির্দেশনায়, সঙ্গীতে, চিত্রণে, নৃত্যে ও সাহিত্যে বহু অসাধারণ প্রতিভা । সময়ের প্রবাহে অনেকে ফিরে যাবেন, সংযোজিত হবে আরও অনেক উজ্জ্বল নাম ।

এই দীর্ঘ সময় ধরে প্রতি বছর প্রতিটি কার্যকরি সমিতি তাদের সভাপতির পরিচালনায় অত্যন্ত দক্ষতার সাথে সংগঠনকে এগিয়ে নিয়ে গেছেন উন্নত থেকে উন্নততর মাত্রায় । তার বিষদ বিবরণ দিতে গেলে অত্যন্ত দীর্ঘায়িত হবে এই প্রতিবেদন । তবুও তারমধ্যেই কিছু বিষয় অত্যন্ত উল্লেখযোগ্য । সমিতির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠান- ‘কিটকো কুইজ” এর পরিকল্পনা করে সেটি বাস্তবায়িত করেছিলেন শ্রী ইন্দ্রজিৎ ভৌমিকের সভাপতিত্বে তৎকালীন কার্যকরি সমিতি । বাঙালীদের সবচাইতে প্রিয় পুজো দুর্গাপূজা ও শারোদোৎসবের আয়োজন সর্বপ্রথম করেছিলেন শ্রী সিদ্ধার্থ দেবের সভাপতিত্বে তৎকালীন কার্যকরি সমিতি । সমিতির যে ওয়েবসাইটটি খুলে সারা বিশ্বব্যাপী এবং কুয়েতের বাঙালীরা সমস্ত তথ্য জানতে পারছেন এবং এই ইতিহাস পড়তে পারছেন,-তার রূপকার ছিলেন অপেক্ষাকৃত নবীন প্রজন্মের একজন সুদক্ষ প্রযুক্তিবিদ,- শ্রী সোমেশ রায়চৌধুরী । সুদীর্ঘ সময় ধরে ডাঃ সন্তোষ সিনহা ও শ্রী সোমেশ রায়চৌধুরীর নীরব তত্ত্বাবধান ও নিরলস প্রয়াসে সক্রিয় ছিল এই ওয়েবসাইট । শ্রী সন্তোষ সিনহা বি সি এস ইয়াহু গ্রুপ এবং বি সি এস পরিবার কুয়েত নামক ফেসবুক গ্রুপটিরও প্রতিষ্ঠাতা । বিসিএসকুয়েত ডট অর্গ – এই ওয়েবসাইটেই আপনারা পড়তে পারবেন সমিতির একমাত্র ই-ম্যাগাজিন-“প্রবাস মঞ্জরী”।

সমিতির ক্রমবিকাশের সাথে সাথে আরো অনেক নতুন অধ্যায় রচিত হবে এবং তদনুসারে সংযোজিত হবে নতুন ইতিহাস ।

উপসংহার:

ক্রমশঃ বঙ্গীয় সাংস্কৃতিক সমিতি সুবৃহৎ এবং কুয়েতে সবচাইতে সম্ভ্রান্ত একটি সংগঠণ হিসাবে পরিগণিত হয়েছে । সমিতির বৎসরব্যাপী বিশাল কর্মকান্ড আজ শুধুমাত্র সমিতির সদস্যদের মনোরঞ্জনের সীমারেখায় সীমাবদ্ধ নেই । কুয়েতে অবস্হিত সমস্ত ভারতীয় সংগঠণগুলিকে তার সাংস্কৃতিক বৈচিত্র, শিক্ষামূলক এবং সামাজিক মূল্যবোধ ও আবেদনের দ্বারা প্রভাবিত ও সমৃদ্ধ করেছে । ভারতীয় দূতাবাসের আহ্বানে আয়োজিত বিভিন্ন সাংস্কৃতিক ও গঠণমূলক অনুষ্ঠানেই আজ আমাদের সমিতি সম্পৃক্ত থাকে । আমাদের সমিতি নিয়মিতভাবে প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে পীড়িত মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে । সদস্যদের থেকে অনুদান সংগ্রহ করে বহু ক্ষেত্রেই রামকৃষ্ণ মিশন এবং ভারত সেবাশ্রম সংঘকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে । কার্গিল যুদ্ধের সময়, গুজরাটের বিপর্যয়ে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে মুক্তহস্তে দান করেছে । সুনামী-পীড়িত মানুষের স্বজনেরা যাতে নিরাপদে ঘরে ফিরতে পারে সেই ব্যাপারেও সহযোগিতা করেছে । ঝঞ্ঝা ও বন্যাবিদ্ধস্ত পশ্চিমবাংলায় ত্রাণের জন্য নিয়মিত অর্থসাহায্য করেছে ।
দেশের থেকে এত দূরে থেকেও আমরা যে আমাদের ঐতিহ্য, সংস্কৃতি ও সামাজিক মূল্যবোধকে ধরে রাখতে পেরেছি,- এজন্য আমরা গর্বিত ।

কথায় বলে বাঙালীর বারো মাসে তেরো পার্বণ । প্রবাসের নানা প্রতিকূলতা কাটিয়ে পরিবর্তন ও পরিবর্ধনের মাধ্যমে সাম্প্রতিককালে বঙ্গীয় সাংস্কৃতিক সমিতি কম বেশি যে অনুষ্ঠানগুলি আয়োজিত করে থাকে- তার একটি সূচী তুলে ধরা হলো । এর মাধ্যমে বিশেষতঃ নতুন সদস্যেরা অনুষ্ঠানগুলির সম্পর্কে অবগত হতে পারবেন ।

অনুষ্ঠানসূচী

১) আনন্দমেলা:- রকমারী ঘরে বানানো খাদ্যসামগ্রীর হাট বসে এই মেলায় । তার সাথে আনুসঙ্গিক অনেক চিত্তাকর্ষক বিষয়ও থাকে ।

২) রবীন্দ্রজয়ন্তী:- রবীন্দ্রনাথের স্মরণে রবীন্দ্রসঙ্গীত ও নৃত্যের সমাহার ।

৩) কিটকো কুইজ:- এই অনুষ্ঠানটি কুয়েতে অত্যন্ত জনপ্রিয় ও প্রসিদ্ধ । কুয়েতের বহু স্কুলের ছাত্রছাত্রীরা অংশগ্রহন করে অত্যন্ত উচ্চমানের এই প্রতিযোগিতা ।

৪) দুর্গাপূজা ও শারদোৎসব:- পুজোর দিনগুলোয় তিথি নির্ঘন্ট যথাসম্ভব মেনে পূজা করা হয় আর প্রতি সন্ধ্যায় সমিতির প্রতিভাশালী শিল্পীরা নৃত্য-ও সঙ্গীত ও নাটক, ম্যাজিক শো ইত্যাদি পরিবেশন করেন । ডাণ্ডিয়া নাচের আসর থাকে আর তার সাথে রোজই থাকে সুস্বাদু নৈশভোজ ।

৫) লক্ষ্মীপূজা

৬) দীপাবলী ও শিল্পীবরণ অনুষ্ঠান ।

৭) শিশু ও কিশোর কিশোরীদের অঙ্কন ও বিভিন্ন প্রতিযোগিতা ।

৮) সমিতির আহ্বানে বহিরাগত শিল্পীর একক অনুষ্ঠান ।

৯) সমিতির আভ্যন্তরীণ প্রতিভাধর শিল্পীদের সমন্বয়ে অনুষ্ঠান ।

১০) বাৎসরিক বনভোজন ।

১১) বাৎসরিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ।

১২) বাৎসরিক নাট্যানুষ্ঠান ।

১৩) সমিতির আহ্বানে বহিরাগত কুশীলবদের অভিনয়ে সমৃদ্ধ নাটক

১৪) বাৎসরিক নৈশভোজ ।

১৫) সরস্বতী পূজা ও আনুসঙ্গীক বাৎসরিক সাধারণ সভা ।

বঙ্গাংশের অনুলিখনে –
ডাঃ অশোক দেব